ভাবসম্প্রসারণ: বিত্ত হতে চিত্ত বড় |

ভাবসম্প্রসারণ: বিত্ত হতে চিত্ত বড়।
অথবা, ধনের মানুষ অপেক্ষা মনের মানুষই বড়।
অথবা, ধনের মানুষ মানুষ নয়, মনের মানুষই মানুষ।

বিত্ত হতে চিত্ত বড় ভাবসম্প্রসারণ

ভাবসম্প্রসারণ: সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে মানুষের মূল্যায়ন— তার চিত্ত অর্থাৎ হৃদয়ে। শুভ বিবেক, মূল্যবােধ, মনুষ্যত্ব আর কল্যাণ চেতনার মধ্য দিয়েই যার বহিঃপ্রকাশ ঘটে। এসব গুণ মানুষকে মহিমান্বিত করে। জীবনের জন্যে ধনসম্পদ বা বিত্তের প্রয়ােজন আছে। কিন্তু বিত্ত মনুষ্যত্বের মাপকাঠি নয়। মহৎ চিত্তের অধিকারী মানুষ নিজের বিবেক দিয়ে ভালাে-মন্দ, ন্যায়-অন্যায় উপলব্ধি করে। তারা বিত্তশালী হয়ে থাকলেও প্রাচুর্যের গর্ব করেন না। মনুষ্যত্বের আভিজাত্যের কাছে ধনের আভিজাত্য ম্রিয়মাণ হয়ে যায়। কিন্তু জগতে এমন লােকও আছে, বিত্তের অন্ধ মােহ যাদের আপন খেয়ালের তরীতে ভাসায়। নিজেকে নিয়ে মগ্ন থাকতে শেখায়। কিন্তু চিত্ত এর ব্যতিক্রম। চিত্তের বলেই মানুষ মানুষকে ভালােবাসে। বিপুল সম্পদের আভিজাত্যের গর্বে তারা গর্বিত। ভােগসর্বস্ব এসব মানুষ কেবল আত্মসুখে মগ্ন থাকে। কিন্তু এ সুখ প্রকৃত সুখ নয়। কোনাে মানুষের যদি চিত্তের ঔদার্য না থাকে তার যত ধনসম্পদই থাকুক প্রকৃত বিচারে সে কোনাে মানুষই নয়। বিত্ত তাকে বিলাস ও ভােগের অধিকার দিলেও মনুষ্যত্বের মর্যাদায় অভিষিক্ত করতে পারে না । সমাজ, দেশ ও জাতি তার দ্বারা উপকৃত হয় না। বরং চিত্তহীন বিত্তশালীরা নানাভাবে সমাজকে কলুষিতই করে থাকে। অপরদিকে বিত্তশালী না হয়েও যার সুন্দর ও উদার হৃদয় রয়েছে সে সবার কাছে আদৃত। চিত্তের ঔদার্যে সে মানুষের কল্যাণে ব্রতী হয়। তার পবিত্র হৃদয়ের কল্যাণ স্পর্শের আলােয় আলােকিত হয় অন্য মানুষ, সমাজ ও রাষ্ট্র। মনুষ্যত্বের মহিমায় তারা মহিমান্বিত। তাই তাদের সম্মান ও মর্যাদা চিরস্থায়ী— তারা সবার হৃদয়ে শ্রদ্ধার আসনে আসীন। ধনসম্পদ ক্ষণস্থায়ী আর শুভ্র বিবেক ও মনুষ্যত্ব চিরস্থায়ী। তাই বলা হয় বিত্তের চেয়ে চিত্ত বড়।

একই ভাবসম্প্রসারণের ভিন্ন প্রতিলিপন

মূলভাব: ধন থাকলেই প্রকৃত মানুষ হওয়া যায় না। ঐ ব্যক্তিই প্রকৃত মানুষ যার মন উদার।

সম্প্রসারিত ভাব : মানব জীবনে অর্থ-সম্পদের আবশ্যকতা অনস্বীকার্য। কিন্তু এ অর্থ-সম্পদ যদি মানব কল্যাণে ব্যয়িত না হয়, তবে এর কোনাে মূল্য নেই। এ জন্য সংকীর্ণমনা ব্যক্তিরা মহা সম্পদশালী হলেও স্মরণীয় বা বরণীয় হতে পারে না। আর্তের সেবা, দুঃখীর দুঃখ মােচন তথা মানব কল্যাণে তাদের অর্থ ব্যয় হয় না বলে সমাজে তাদের সমাদর ক্ষণস্থায়ী। বিত্তের বৈভবে তারা সমাজে সাময়িকভাবে সমাদৃত হলেও মানুষের মনে স্থায়ী আসন করে নিতে পারে না। তাদের সংকীর্ণতা ও অনুদারতা নিয়ে সবাই হাসি-তামাশা করে। মৃত্যুর কিছুদিনের মধ্যেই এ পৃথিবী থেকে তাদের নাম চিরতরে বিলীন হয়ে যায়। নিজের লােকেরাও তাদের নাম স্মরণ করে না। পক্ষান্তরে, মানুষের মন এমন এক বস্তু যা মানুষকে অতি উচ্চাসনে নিয়ে যেতে পারে। যে হৃদয় মানব দরদি ও মানব হিতৈষী সেই হৃদয়াধিকারীকে দেখলে মানুষের মাথা আপনিই নত হয়ে আসে এবং তাদের অন্তর অপূর্ব ভক্তিরসে সিক্ত হয়। মানব কল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ হযরত মুহাম্মদ (স), বেগম রােকেয়া, মাদার তেরেসার মতাে আরও অনেকে মৃত্যুর পরও এই পৃথিবীতে অমর ও অনুকরণীয় হয়ে আছেন। তাদের উদার মনমানসিকতার কারণেই।

মন্তব্য: ধনাঢ্য ব্যক্তির চেয়ে মহৎ হৃদয়ের অধিকারীই প্রকৃত মানুষ।

বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.