ভাবসম্প্রসারণ: স্পষ্টভাষী শত্রু নির্বাক মিত্র অপেক্ষা ভালাে / নির্বাক মিত্র অপেক্ষা স্পষ্টভাষী শত্রু অনেক ভালো

ভাবসম্প্রসারণ নির্বাক মিত্র অপেক্ষা স্পষ্টভাষী শত্রু অনেক ভালো বা স্পষ্টভাষী শত্রু নির্বাক মিত্র অপেক্ষা ভালাে

নির্বাক মিত্র অপেক্ষা স্পষ্টভাষী শত্রু অনেক ভালো / স্পষ্টভাষী শত্রু নির্বাক মিত্র অপেক্ষা ভালাে ভাবসম্প্রসারণ

মূলভাব: মানবচরিত্রের অসাধারণ একটি গুণ হল—সত্য বলার সাহস রাখা। যে ব্যক্তি সত্যের পক্ষে আপসহীন, অন্যায়ের কালিমা তাকে কখনােই স্পর্শ করতে পারে না। এমন ব্যক্তির শত্রুতা নির্বাক বন্ধুর বন্ধুত্বের তুলনায় অনেক বেশি প্রশংসার দাবিদার।

ভাবসম্প্রসারণ: মানুষ একা পথ চলতে পারে না। সে অন্যের সঙ্গ কামনা করে, চায় প্রকৃত বন্ধুত্ব। যে বন্ধুত্ব সুখে-দুঃখে, আনন্দ-বেদনায় তথা জীবনের প্রতি মুহূর্তে নিঃস্বার্থ সঙ্গ প্রদান করবে। কিন্তু বন্ধু যদি সময়ে-অসময়ে বন্ধুর পাশে এসে না দাঁড়ায়, নির্বাক থাকে, প্রয়ােজনে সুপরামর্শ দান না করে তবে সে বন্ধুত্বের কোনাে মূল্য নেই। বন্ধু যদি বন্ধুর ত্রুটি-বিচ্যুতি নির্দেশ করে সংশােধনের পথ বাতলে না দেয় তবে সে বন্ধু কোনাে মঙ্গলজনক কাজে লাগে না। বরং প্রয়ােজনে সত্য উচ্চারণ থেকে যে বন্ধু নিজেকে বিরত রাখে সে বন্ধুর ভূমিকা নেতিবাচক বলেই গণ্য হয়। অন্যদিকে স্পষ্টবাদী শত্রু অনেক সময় মানুষের জীবনে পালন করে উপকারীর ভূমিকা, শত্রু যদি স্পষ্টভাষী হয় তাহলে সে অকপটে অন্যের দোষত্রুটি সামনে তুলে ধরে। এতে একদিকে শত্রু সম্পর্কে যেমন সতর্ক হওয়া যায়, তেমনি নিজেকে সংশােধন করার পথও খুঁজে পাওয়া যায়। অর্থাৎ নির্বাক বন্ধুর তুলনায় স্পষ্টভাষী শত্রুই পালন করে প্রকৃত সুহৃদের ভূমিকা। তাই বিজ্ঞ ব্যক্তিরা নির্বাক বন্ধুর তুলনায় স্পষ্টবাদী শত্রুকেই জীবনে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। কেননা তারাই দিয়ে থাকে সঠিক পথের সন্ধান।

মানুষের জীবনে প্রকৃত বন্ধুর ভূমিকা অনন্য, যদি সে বন্ধু সত্য প্রকাশে অকপট হয়। তাই বন্ধু নির্বাচনে তার স্পষ্টবাদী গুণের দিকে লক্ষ রাখতে হবে। কেননা, তবেই বন্ধু বন্ধুর জন্যে মালজনক ভূমিকা পালন করতে পারবে।

একই ভাবসম্প্রসারণের ভিন্ন প্রতিলিপন

মূলভাব : যে ব্যক্তি সত্য প্রকাশ করতে সাহস পায় না সে বন্ধু হলেও প্রকৃত বন্ধু নয়। পক্ষান্তরে, যে ব্যক্তি সত্য কথা বলতে দ্বিধাবােধ করে না, অন্যায়ের বিরুদ্ধে সােচ্চার ও প্রতিবাদী, সে বন্ধু না হলেও নির্বাক বন্ধু অপেক্ষা অনেক ভালাে।

সম্প্রসারিত ভাব : মিত্ৰতা দুটি দেহের মধ্যে অভিন্ন এক হৃদয় সৃষ্টি করে। দৃষ্টিভঙ্গির সমতার মাধ্যমে মিত্রতা গড়ে
ওঠে। একজন সৎ বন্ধু প্রত্যেকের জীবনে অপরিহার্য। কিন্তু কোনাে ব্যক্তি যদি তার বন্ধুর বিপদে নির্বাক দর্শকের ভূমিকা
পালন করে, তাহলে এমন মিত্র থাকা না থাকা সমার্থক। মানুষের জীবনে এক মহৎ গুণ স্পষ্টবাদিতা। স্পষ্টভাষী লােক শত্রু
হলেও নির্বাক বন্ধু অপেক্ষা সহস্র গুণ শ্রেয়। আমাদের সমাজে এমন অনেক লােক আছেন যারা বন্ধুর বিপদে বন্ধুর পাশে
থেকেও কোনাে প্রকার সাহায্য বা সহানুভূতি প্রকাশ না করে নির্বাক দর্শকের ভূমিকা পালন করেন। তারা সযত্নে সকল
প্রকার ঝুঁকি এড়িয়ে চলতে চান। অন্যায়কে অন্যায় বলার মতাে সৎ সাহসও তাদের থাকে না। এমন প্রকৃতির ব্যক্তি বন্ধু
হলেও তাকে পরিত্যাগ করা বাঞ্ছনীয়। অপরদিকে স্পষ্টবাদী ব্যক্তি সব সময়ই অন্যায়ের বিরুদ্ধে সােচ্চার ও প্রতিবাদী। তার।
সম্মুখে ঘটে যাওয়া অন্যায়কে সে অন্যায় বলে প্রতিবাদ করতে কুণ্ঠাবােধ করে না। তাই এমন ব্যক্তি শত্রু হলেও নির্বাক বন্ধু
অপেক্ষা অনেক ভালাে। সে শত্রু হলেও স্পষ্টবাদিতার গুণে মহৎ বন্ধু। হযরত ওমর (রা) এর ভাষায়-

“যে তােমার দোষ ধরে বন্ধু সেই জন।”

বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *