সত্যবাদিতা বা সততা রচনা (৭৫০ শব্দে)

সত্যবাদিতা বা সততা রচনার সংকেত(Hints)

  • ভূমিকা
  • সততার বৈশিষ্ট্য
  • সততা শ্রেষ্ঠ গুণ
  • সমাজজীবনে সততার প্রভাব
  • সততার প্রয়ােজনীয়তা
  • সততাহীনতার পরিণাম
  • উপসংহার

সত্যবাদিতা বা সততা রচনা

ভূমিকা:

যেসব মানবীয় গুণ মানুষকে সমাজের উঁচু স্তরে আসীন করে তার মধ্যে সত্যবাদিতা অন্যতম। মানব চরিত্রকে মহিমান্বিত করতে হলে মানুষকে যেসব গুণের অধিকারী হতে হয় তার মধ্যেও সত্যবাদিতা বা সততা সবচেয়ে উল্লেখযােগ্য। সত্যকে কোনােরূপ বিকৃত না করে প্রকাশ করা এবং ব্যক্তির দৈনন্দিন জীবনে সত্য চর্চারই নাম সত্যবাদিতা। যুগে যুগে সত্যবাদী মানুষরা জগতে নন্দিত হয়েছে সততার উপযুক্ত পুরস্কারে ।

সততার বৈশিষ্ট্য:

জীবনের ভিন্ন ভিন্ন পদক্ষেপে সত্যকে ধারণ করে যাওয়ার মধ্যেই সততার বৈশিষ্ট্য বর্তমান । জাগতিক জীবনে সত্য ও মিথ্যা দুই-ই আছে। সত্য ও মিথ্যার মধ্যে মানুষ সময়ে সময়ে কোনাে একটিকে গ্রহণ করে। সত্য ও মিথ্যার মাঝামাঝি দাঁড়িয়ে মিথ্যাকে পরিহার করে সত্যকে গ্রহণ করা সহজ কাজ নয়। কিন্তু সত্যবাদী মানুষের কাছে মিথ্যাকে গ্রহণ করাই কঠিন। জীবনের কঠিন পরিস্থিতিতেও মিথ্যাকে দূরে ঠেলে যারা সত্যকে স্বাগত জানায় তাদের জীবনেই সততার বৈশিষ্ট্যের প্রমাণ মেলে। সত্যবাদী ব্যক্তির প্রতিটি কাজকর্মে সততার লক্ষণ প্রকাশ পায়। সততা আছে এমন ব্যক্তির পক্ষে সৎ চিন্তা, সৎ কাজ, সদ্ব্যবহার ইত্যাদি প্রশংসনীয় গুণকে বাদ দিয়ে জীবন কল্পনা করা সম্ভব নয়। ফলে তার জীবন হয়ে ওঠে সমাজের জন্যে আদর্শ । মানুষকে পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে বিভিন্ন প্রয়ােজনে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হয়। কখনাে কখনাে সাময়িক লাভ ও ব্যক্তিস্বার্থকে রক্ষা করার জন্যে মানুষ মিথ্যার পক্ষেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। কিন্তু সত্যবাদী ব্যক্তি নিজের স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে হলেও সত্যের পক্ষেই অবস্থান গ্রহণ করে থাকেন। তাই ব্যক্তি জীবনের সিদ্ধান্ত গ্রহণের মধ্য দিয়েও মানুষ তার সততা ও অসততাকে জানান দিতে পারে।

সততা শ্রেষ্ঠ গুণ:

প্রবাদ আছে ‘Honesty is the best policy.’ তাই গুণ হিসেবে সততার স্থান সবার ওপরে । যে জীবনে সততার অভাব আছে তাকে যেমন যত্রতত্র নিগৃহীত হতে হয় তেমনি সততাকে ধারণ করে এমন ব্যক্তি সর্বত্র হয়ে ওঠে পূজনীয়। জগতে কীর্তিমান মহামানবদের জীবনেও সততা চর্চার উদাহরণ লক্ষ করা যায়। পরিবারে অন্তত একজন ব্যক্তিও যদি সততার চর্চা করে তবে দেখা যায় সে পরিবারের সকলের কাছে অনেক বেশি বিশ্বস্ত হয়ে ওঠে। সমাজজীবনেও এরূপ উদাহরণ চোখে পড়ে। নিতান্ত দরিদ্র হয়েও অনেক ব্যক্তি সমাজে আস্থাভাজন হয়ে ওঠে। পক্ষান্তরে, প্রচুর অর্থ-বিত্ত থাকা সত্ত্বেও সততা নেই বলে অনেকেই সমাজে বিবেচিত হয় নিকৃষ্ট ব্যক্তি হিসেবে। অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক জীবনেও সততার মতাে শ্রেষ্ঠ গুণটি বড় ভূমিকা পালন করে। কোনাে সমাজ কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠান বা সমবায় সমিতিতে কোষাধ্যক্ষ পদটিতে সততা আছে এমন ব্যক্তিকেই নিয়ােগ দেয়া হয়। কোনো কোনাে সময় রাজনৈতিক হিসাব-নিকাশকে বদলে দেয় ততা। কোনাে রাজনৈতিক দলের পরাক্রমশালী নেতা হয়তাে প্রচুর অর্থ ব্যয়ে নির্বাচনে বিজয়ী হবার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালায়। পক্ষান্তরে, রাজনৈতিক দলগত পরিচয় না থাকা সত্ত্বেও কোনাে ব্যক্তি স্বতন্ত্র হিসেবেই নির্বাচনে বিপুল ভােটে জয় লাভ করে। শুধু সততার শক্তিতেই। তাই মানবজীবনে সততাই শ্রেষ্ঠ গুণ হিসেবে বিবেচিত

সমাজজীবনে সততার প্রভাব:

সমাজজীবনে সততার আছে শক্তিশালী প্রভাব। সৎ ব্যক্তি সমাজের সর্বস্তরের মানুষের পছন্দের ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত হয়। ফলে তার ওপরই সকলে ন্যস্ত করতে চায় নেতৃত্ব। তাই সততার বলে ব্যক্তি সমাজে উচ্চ ও দৃঢ় অবস্থানে আসীন হয়। যুগে যুগে শিক্ষাহীন, ধর্মহীন মানুষকে ধর্মের পথে দীক্ষিত করা সম্ভব হয়েছিল সমাজের সৎ ব্যক্তিদের মাধ্যমেই । ধর্ম প্রচারক, ও আল্লাহর প্রেরিত প্রিয়বান্দারা সকলেই ছিলেন সত্যবাদী। তাই তাদের আমন্ত্রণে পথহারা মানুষ। ধর্মের আওতায় এসে সঠিক পথের সন্ধান লাভ করেছে। ব্যক্তি হজরত মুহম্মদ (স.) তৎকালীন মূখ সমাজের মানুষকে আল্লাহর মনােনীত ধর্মে আকৃষ্ট করতে পেরেছিলেন তাঁর সততাপূর্ণ সর্বোৎকৃষ্ট চরিত্রগুণেই। এমনকি বিধর্মী ইহুদিরা পর্যন্ত তাকে ‘আল-আমিন’ বলে ডাকত তার জীবনে সততা ছিল বলেই । ফলে সমাজের মানুষ তাকে বিশ্বাস করেছে। আর বিশ্বাসকে কাজে লাগিয়েই ইসলাম ধর্মের বিস্তৃতি ঘটিয়েছিলেন হজরত মুহম্মদ (স.)। তাই সমাজজীবনে এই সততার ব্যাপক প্রভাবের কথা অস্বীকার করা যায় না ।

সততার প্রয়ােজনীয়তা:

ব্যক্তি ও সমাজজীবনে সততার প্রয়ােজনীয়তা অনস্বীকার্য। জীবনের অনিবার্য প্রয়ােজনে মানুষকে কাজ করতে হয়, চাকরিতে যােগদান করতে হয়। কর্মজীবনে সততা না থাকলে সহকর্মীদের শ্রদ্ধা ও আন্তরিকতা লাভ করা যায়। লােভ-লালসা, প্রলােভন ইত্যাদির উর্ধ্বে থেকে মানুষকে সততা চর্চা করতে হয়, অন্যথা ব্যক্তির নৈতিক চরিত্র কলুষিত হয় । সমাজজীবনে সততার অভাব হলে সমাজে অন্যায়-অবিচার বৃদ্ধি পায় । সমাজ হয়ে পড়ে অস্থিতিশীল। তাই একটি সুন্দর সমাজের আকাঙ্ক্ষা পূরণের জন্যে চাই সততা চর্চা। রাষ্ট্রীয় বা জাতীয় জীবনেও রয়েছে সততার অপরিসীম। প্রয়ােজনীয়তা। জাতীয় জীবনে সততার অনুশীলন যত বেশি হবে রাষ্ট্র তত নিরাপদ ও শান্তিময় হয়ে উঠবে। অন্যদিকে, সততার অভাব থেকে দুর্নীতি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়বে। ফলে জাতির জাতীয় উন্নয়ন মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হবে। তাই সততার প্রয়ােজনকে স্বীকার করে এর অনুশীলন বৃদ্ধি করা জরুরি।

সততাহীনতার পরিণাম:

সততাহীন যে জীবন সে জীবন জননিন্দিত জীবন। মানুষ এ জীবনকে সমর্থন করে না, এমনকি সষ্টাও সততাবর্জিত মানুষকে অপছন্দ করেন। সততাহীন জীবনের কাছে কোনাে অন্যায়ই অন্যায় বলে বিবেচিত হয় না। ফলে পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। পৃথিবীতে এমন রাষ্ট্র চোখে পড়ে যেখানে শুধু সততার অভাব আছে বলেই তারা পিছিয়ে আছে আর সে কারণেই উন্নয়ন আর গৌরব তাদের কাছে রয়ে গেছে অধরা।

উপসংহার:

সততা মানবজীবনের ভূষণ। এ সৎ গুণটি মানুষকে মহিমান্বিত করে। সমাজ ও রাষ্ট্রে সকল নাগরিক এ গুণটি চর্চা করলে জাতির ললাটে জুটবে গৌরবের রাজটিকা। সত্য, সুন্দর ও নান্দনিক জীবনের আনন্দ উপভােগ করতে হলেও সততা বা সত্যবাদিতার বিকল্প নেই।

বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *