ইভটিজিং অনুচ্ছেদ | বাংলা ২য় পত্র অনুচ্ছেদ রচনা

প্রশ্নঃ ইভটিজিং নিয়ে বাংলা অনুচ্ছেদ লিখ ।

উত্তরঃ

ইভটিজিং এক ধরনের সামাজিক অপরাধ । এটি এক ধরনের যৌন আগ্রাসন যার মধ্যে রয়েছে যৌন ইঙ্গিতবাহী মন্তব্য, প্রকাশ্যে অযাচিত স্পর্শ, শিস দেওয়া বা শরীরের সংবেদনশীল অংশে হস্তক্ষেপ করা। কখনাে কখনাে একে নিছক রসিকতা বলে গণ্য করা হয়, যা অপরাধীকে দায় এড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। ইভ’ দিয়ে পৌরাণিক আদিমাতা হাওয়া অর্থে সমগ্র নারীজাতিকে বােঝানাে হয়। অনেক নারীবাদী সংগঠন আরও উপযুক্ত শব্দ দিয়ে ইভটিজিংকে প্রতিস্থাপনের দাবি জানিয়েছে। তাদের মতে ‘ইভ’ শব্দের ব্যবহার নারীর আবেদনময়তাকে নির্দেশ করে, যে কারণে উত্ত্যক্ত হওয়ার দোষ নারীর ওপর বর্তায়। আর পুরুষের আচরণ আগ্রাসনের পরিবর্তে স্বাভাবিক হিসেবে ছাড় পায় । ইভটিজাররা নানা কৌশলে মেয়েদের উত্ত্যক্ত করে। ফলে এ অপরাধ প্রমাণ করা কঠিন। এমনকি অনেক নারীবাদী একে ছােটোখাটো ‘ধর্ষণ’ বলে আখ্যায়িত করেছে। কেউ কেউ ইভটিজিং থেকে রেহাই পেতে নারীদের রক্ষণশীল পােশাক-আশাক পরতে উৎসাহিত করেন। তবে রক্ষণশীল পােশাক পরিহিত নারীরাও ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছেন এমন উদাহরণও অগণিত। বিশ শতকের ৬০-এর দশক থেকে বিষয়টি দৃষ্টিগ্রাহ্য হতে শুরু করে। কিন্তু ৮০-এর দশক থেকে এটি ক্রমশ বৃদ্ধি লাভ করে, যখন অধিকাংশ মেয়ে বিদ্যালয় ও কর্মক্ষেত্রে যেতে থাকে। কিন্তু দেশের মানুষের পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা এবং প্রভাবশালীদের দ্বারা আইনের অপব্যবহারের ফলে বেশিরভাগ অপরাধীর শাস্তি হয় না। এটি পুনরায় অপরাধ সংঘটনে অপরাধীকে আরও বেশি উৎসাহিত করে। প্রকাশ্যে ইভটিজিং নারীর মানসিক অবস্থাকে বিধ্বস্ত করে দেয়। এমনকি হয়রানির শিকার মানবীকে আত্মহত্যা করতেও দেখা যায়। মাঝে মাঝে সামাজিক লােকলজ্জার ভয়ে মেয়েরা কোনাে অভিযােগও জানায় না। পুলিশ ইভটিজারকে ছেড়ে দেয় জনগণকে হাসানাের মতাে ‘হালকা শাস্তি দিয়ে। অনেক সময় গ্রাম্য বিচারে আক্রান্ত নারীকে হয়রানি করা হয়। তবে বর্তমানে দেশে প্রকাশ্যে ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে শক্ত জনমত তৈরি হয়েছে। ফলে মানুষের মাঝে ক্রমশ সচেতনতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবুও ইভটিজিং ঘটনা ঘটে চলেছে অহরহ। আমাদের দেশ থেকে এই সমস্যা দূর করার জন্যে যথাযথ আইনের প্রয়ােগ, কিশাের-যুবকদের মনে নারীর প্রতি সম্মান জাগানাের ব্যবস্থা করা, নারীর সচেতনতা বৃদ্ধি ইত্যাদি বিষয়ের সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে । আর উদ্যোগটি নিতে হবে পরিবার থেকে।

ইভটিজিং অনুচ্ছেদটি কেমন হয়েছে ? নতুন কিছু সংযোজন করা যায় বা বাদ দেওয়া প্রয়োজন? কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *