সড়ক দুর্ঘটনার কারণ ও প্রতিকার রচনা

সড়ক দুর্ঘটনার কারণ ও প্রতিকার রচনার সংকেত

সড়ক দুর্ঘটনার কারণ ও প্রতিকার রচনা

  • ভূমিকা
  • বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার ব্যাপ্তি
  • বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার কারণ
  • সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিকারের উপায়
  • উপসংহার

ভূমিকা:

সংবাদপত্রে প্রতিদিন মর্মান্তিক যে খবরটি অনিবার্য বিষয় তা হলাে সড়ক দুর্ঘটনা দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতের সংখ্যা, সারি-সারি মৃতদেহের ছবি, দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া গড়ি— দিনের শুরুটাই হয় এমন মন খারাপ করা খবরে । এভাবে প্রতিদিন
সংবাদপত্রের পৃষ্ঠাগুলােয় থাকে একাধিক সড়ক দুর্ঘটনার সংবাদ। যেন পথের ধারে ঘাপটি মেরে বসে আছে। ছদ্মবেশী মৃত্যু। তাই আজ যে সংবাদ আমার কাছে কেবলই দুর্ঘটনা, কাল হয়তাে আমার স্বজন কিংবা আমিই হব তার নির্মম শিকার।

বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার ব্যাপ্তি:

বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে। এছাড়া বিভিন্ন জেলা শহরের সড়কগুলােও যেন মৃত্যু ফাঁদ । ঢাকার টিএসসি মােড় থেকে নীলক্ষেত, জাহাঙ্গীনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের হাইওয়ে; চট্টগ্রামের ইউএসটিসির সামনের সড়কে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঝরে গেছে অনেক শিক্ষার্থী, এমনকি শিক্ষকের প্রাণ এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞলের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনার হার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। সূত্রমতে, প্রতি দশ হাজার। যানবাহনে বাংলাদেশে প্রাণহাণির হার একশ উনসত্তর জন । অথচ বিশ্বের সর্ববৃহৎ গাড়ি প্রস্তুতকারী দেশ জাপানে প্রতি দশ হাজার গাড়িতে দুর্ঘটনায় মৃত্যুর হার ১.৯ জন।

বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার কারণ:

একটি পরিসংখ্যানে প্রকাশ, বাংলাদেশে প্রতি মাসে গড়ে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয় ৪০০ জন। এদের মধ্যে অনেকেই মৃত্যুবরণ করে। কেউ কেউ গুরুতর আহত হয়, বরণ করে নেয় স্থায়ী পঙ্গুত্বের অভিশাপ। যেসব কারণগুলাে সড়ক দুর্ঘটনার জন্য প্রধানত দায়ী তা হলাে—
১. বেপরােয়া গতিতে গাড়ি চালানাে;
২. ত্রুটিযুক্ত যানবাহন;
৩.ফিটনেসবিহীন গাড়ি;
৪.লাইসেন্সবিহীন অদক্ষ চালক;
৫.হেলপার দিয়ে গাড়ি চালানাে;
৬.ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ড্রাইভারদের অজ্ঞতা বা অনীহা;
৭. শিথিল ট্রাফিক আইন ব্যবস্থা;
৮.জেব্রা ক্রসিং, ফুটপাথ ও ফ্লাইওভারের স্বল্পতা;
৯.অপ্রশস্ত রাস্তা;
১০. ডিভাইডারযুক্ত চারলেন বিশিষ্ট দ্বিমুখী সড়কের অভাব ইত্যাদি।
এছাড়া হকারদের ফুটপাথ দখল, যত্রতত্র রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি, পথের ধারে বেআইনিভাবে গাড়ি পার্কিং প্রভৃতি কারণে রাস্তা সংকুচিত হয়ে পড়ে। এসবও সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ।

সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিকারের উপায়:

বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার কারণ একটি নয়, একাধিক। তবে প্রতিকারের উপায় সহজসাধ্য । প্রয়ােজন কেবল সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন এ লক্ষ্যে
১. ট্রাফিক আইনের কার্যকারিতা নিশ্চিত করতে হবে;
২. সড়ক অনুযায়ী যানবাহনের গতি নির্ধারণ করে দিতে হবে;
রাস্তাঘাট সংস্কার ও প্রশস্ত করতে হবে;
৪. ফুটপাত হকারদের দখলমুক্ত করতে হবে;
৫. ডিভাইডারযুক্ত চারলেন বিশিষ্ট দ্বিমুখী সড়ক নির্মাণ করতে হবে;
৬. ফিটনেসবিহীন গাড়ি ও ত্রুটিযুক্ত যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করতে হবে;
৭, প্রয়ােজন অনুযায়ী জেব্রা ক্রসিং দিতে হবে, নির্মাণ করতে হবে ফ্লাইওভার;
৮. পথচারীদের পথ চলার নিয়ম সম্পর্কে সচেতন হতে হবে;
৯.লাইসেন্সবিহীন চালকদের কঠোর শাস্তির বিধান করতে হবে;
১০. উন্নত সিগন্যালিং ব্যবস্থা, রেলগেট নির্মাণ এবং হাইওয়ে ট্রাফ্রিক নজরদারি বাড়াতে হবে।

উপসংহার:

প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে অকালে ঝরে যায় কত প্রাণ । পঙ্গুত্ব বরণ করে কেউ উে জীবন্মত হয়ে বেঁচে থাকে। হতাহতদের পরিবারে একদিকে জমে বুকচাপা কান্না, অন্যদিকে আইনগত বিচার চাইতে গিয়ে তাদের পড়তে হয় নানান জটিলতায় । আইনের যথাযথ প্রয়ােগ নেই বলেই অপরাধ করেও দায়ী ব্যক্তিরা অবলীলায় পার পেয়ে যায়। তাই সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে হলে সবচেয়ে বেশি প্রয়ােজন আইনের কার্যকর প্রয়ােগ। আর এ দায়িত্ব নিতে হবে সংশ্লিষ্ট পুলিশ প্রশাসনকে। সমস্যা নিরসনের জন্য দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সত্যিকারভাবে এগিয়ে আসতে হবে সরকারকে।

বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *