লাবনী পয়েন্ট: দর্শনীয় স্থান ও ভ্রমণগাইড

লাবনী পয়েন্ট

বাংলাদেশ বিশ্বের বৃহৎ বদ্বীপ। এই বদ্বীপের সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্থান হলাে কক্সবাজার। লাবনী পয়েন্ট কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে অবস্থিত। প্রতিনিয়ত এখানে শত শত মানুষ উপভােগ করতে আসে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।

Source: HRKMultimedia

লাবনী পয়েন্ট এর অবস্থান

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের একটি অংশের নাম লাবনী পয়েন্ট।

লাবনী পয়েন্টে যা যা দেখতে পাবেন

বিস্তীর্ণ বেলাভূমি, সারি সারি ঝাউবন, সৈকতে আছড়ে পড়া বিশাল ঢেউ। সকালবেলা দিগন্তে জলরাশি ভেদকরে রক্তবর্ণের থালার মতাে সূর্য। অস্তের সময় দিগন্তের চারিদিকে আরাে বেশি স্বপ্নিল রঙ মেখে সে বিদায় জানায়। এসব সৌন্দর্যের পসরা নিয়েই বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলে রচনা করেছে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। প্রায় ১২০ কিলােমিটার দীর্ঘ বাংলাদেশের পর্যটন রাজধানী বলা হয় এ জায়গাটিকে। সড়কপথে ঢাকা থেকে প্রায় ৪৫০ কিলােমিটার এবং চট্টগ্রাম থেকে প্রায় ১৫০ কিলােমিটার দূরে রয়েছে নয়নাভিরাম এ সমুদ্র সৈকত। এখানকার সমুদ্রের পানিতে গােসল, সূর্যাস্তের মনােহরা দৃশ্য দেখেও ভালাে লাগবে। কক্সবাজার সৈকত ভ্রমণের শুরুটা হতে পারে লাবনী পয়েন্ট থেকে। লাবনী বিচ ধরে হেঁটে হেঁটে পূর্ব দিকে সােজা চলে যাওয়া যায় হিমছড়ির দিকে। যতোই সামনে এগুবেন ততােইসুন্দর এ সৈকত। সকাল বেলা বের হলে এ সৌন্দর্যের সাথে বাড়তি পাওনা হবে নানান বয়সী জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য। শুধু সমুদ্র সৈকতই নয়, কক্সবাজার শহরের বৌদ্ধ মন্দির, বার্মিজ মার্কেট, হিলটপ রেস্টহাউস ইত্যাদি কক্সবাজার ভ্রমণের অন্যতম দ্রষ্টব্য স্থান। কক্সবাজার শহরের জদি পাহাড়ের উপরে রয়েছে বেশ কয়েকটি প্রাচীন বৌদ্ধ মন্দির। শহরের যে কোন জায়গা থেকেই রিকশায় আসা যায় এখানে। সান বাঁধানাে সিঁড়ি ভেঙ্গে জাদির পাহাড়ের উপরে উঠলে সাদা রঙের এসব বৌদ্ধ প্যাগােডা দেখে ভালাে লাগবে। এই পাহাড়ের উপর থেকে কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন স্থান দেখতে পাওয়া যায়। শহরের আরেক জায়গায় রয়েছে অর্ঘমেধা কেয়াং নামে আরেকটি বৌদ্ধ প্যাগোডা। কাঠের তৈরি প্রাচীন এ বৌদ্ধ মন্দিরটি দেখে আসতে ভুলবেন না। কক্সবাজারে থাকার জন্য এখন অনেক ত্যাধুনিক হােটেল মােটেল রয়েছে।

কিভাবে যাবেন লাবনী পয়েন্ট?

ঢাকা থেকে বাসে করে কক্সবাজার যেতে হবে। কক্সবাজার শহরের পাশেই লাবনী পয়েন্ট।

কোথায় থাকবেন লাবনী পয়েন্ট যেয়ে?

কক্সবাজার হলাে আবাসিক হােটেলের শহর। কক্সবাজার শহরের যে কোন হােটেলে রাতযাপন করা যাবে। কক্সবাজার ভ্রমণগাইড পোস্টে হোটেলসমূহের নম্বরসহ বিস্তারিত দেওয়া হয়েছে। ভিসিট করতে ক্লিক করুন।

বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *